কচুয়ায় দুই শিক্ষার্থীর করুণ মৃত্যু

কচুয়া উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যু এবং অপর একজন আহত হয়েছে। একইদিন পানিতে ডুবে এক পিইসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু হয়।

জানা যায়, উপজেলার পালাখালে বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে রিফাত মজুমদার (১৯) নামে কলেজ ছাত্র নিহত হয়েছে। একই সময় সাকিব নামে আরেকজন আহত হয়। ২৫ নভেম্বর সোমবার রাত আনুমানিক ৯টার দিকে পালাখাল মজুমদার বাড়িতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রিফাত ওই বাড়ির জামাল হোসেনের ছেলে। আহত সাকিব একই বয়সের। সেও পালাখাল গ্রামের ডাঃ বাড়ির শাহজাহান মিয়ার ছেলে।

নিহতের স্বজনরা ও পালাখাল মডেল ইউপি চেয়ারম্যান ইমাম হোসেন জানান, নিহত ও আহত দুজন ব্যাডমিন্টন খেলার জন্য কাঁচা বাঁশে বিদ্যুতের তারের সংযোগ দিতে গিয়ে হঠাৎ উভয়েই তারে জড়িয়ে গুরুতর আহত হয়। পরে দুজনকে মুমূর্ষু অবস্থায় কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েনিয়ে এলে কর্মরত চিকিৎসক রিফাতকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর আহত সাকিব চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

অপরদিকে কচুয়া উপজেলার গোহাট দক্ষিণ ইউনিয়নের নাউপুরা গ্রামে শাপলা ফুল তুলতে গিয়ে পিইসি শিক্ষার্থীর করুণ মৃত্যু হয়েছে। তার নাম আবু আহাদ রাফি (১২)। বাবা প্রবাসী বজলুল হক। সোমবার দুপুরে নাউপুরা হাজী বাড়ির একটি কুপে শাপলা ফুল তুলতে যায় আবু আহাদ রাফি। ওইসময় তার সাথে এক শিশু ছিল। সে বাড়িতে গিয়ে জানায় রাফি পানিতে ডুবে গেছে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। গোহাট দক্ষিণ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহিন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, নানার বাড়ি শাহরাস্তি উপজেলার টামটা গ্রামে শিশু রাফিকে দাফন করা হয়। রোববার তার পিইসি পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর সে নাউপুরা গ্রামের বাড়িতে একদিনের জন্যে এসে এ দুর্ঘটনার শিকার হয়। রাফী হাজীগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। টামটা গ্রামের নানার বাড়িতে থেকে সে পড়াশোনা করতো। বিদ্যুৎস্পৃষ্টে রিফাত ও পানিতে ডুবে রাফির অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

Related posts