দ্বিতীয় দিনে পাটকল শ্রমিকদের অনশন, ৪০ জন অসুস্থ

মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন, পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) ব্যবস্থা বাতিলসহ ১১ দফা দাবিতে আজ বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকেরা।

গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩টা থেকে নিজ নিজ মিল গেটে ওই কর্মসূচি শুরু করেন শ্রমিকেরা। রাতে তাঁরা সেখানেই অবস্থান করেন। আজ বেলা ১২টা পর্যন্ত প্রায় ৪০ জন শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েন। ১৫ জনকে চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের অনশনস্থলে স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের ওই আন্দোলনের ডাক দিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদ। ওই পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক খলিলুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, প্রচণ্ড শীত ও ক্ষুধার কারণে শ্রমিকেরা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। ১৫ জনকে ইতিমধ্যে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। সমস্যা সমাধানে ঢাকায় মঙ্গলবার বৈঠক হলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। এ জন্য শ্রমিকেরা অনশন অব্যাহত রেখেছেন। যতই কষ্ট হোক, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত অনশন চলবে।

পরিষদের নেতারা বলেন, পূর্বঘোষিত এই অনশন কর্মসূচিতে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের মধ্যে ৮টি অংশ নিচ্ছে। শুধু যশোরের জেজেআই আন্দোলনের অন্যান্য কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত থাকলেও অনশন কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে না।

খুলনা অঞ্চলে মোট রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকল আছে। এর মধ্যে খুলনায় সাতটি ও যশোরে দুটি। খুলনায় থাকা পাটকলগুলো হলো ক্রিসেন্ট জুট মিল, খালিশপুর জুট মিল, দৌলতপুর জুট মিল, প্লাটিনাম জুট মিল, স্টার জুট মিল, আলিম জুট মিল ও ইস্টার্ন জুট মিল। আর যশোরের দুটি জুট মিল হলো কার্পেটিং ও জেজেআই।

শ্রমিকদের ১১ দফা দাবির মধ্যে আছে—বকেয়া মজুরি পরিশোধ, পিচ রেটে (ঘণ্টা অনুযায়ী মজুরি) শ্রমিকদের গড় মজুরি দেওয়া, বকেয়া থাকা অবসর ও মৃত্যু বিমার টাকা পরিশোধ করা, নিজ নিজ মিলের পিএফ ফান্ডের টাকা আবার ওই ফান্ডে ফেরত দেওয়া, মৃত্যুজনিত শ্রমিকদের বিমা দাবি ৩৬ মাস হিসেবে পরিশোধ করা, টার্মিনেশন ও বরখাস্ত সব শ্রমিক -কর্মচারীদের পুনর্বহাল করা, শ্রম আদালত ও আপিল ট্রাইব্যুনালের যে কোনো রায় পুনর্বহাল রাখা, বদলি শ্রমিকদের স্থায়ী করা, শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে শ্রমিকদের কাজ বণ্টন করা, মিলের কর্মচারীদের নিয়োগ আবার মিলের কাছে হস্তান্তর করা, চাহিদা অনুযায়ী পাটের মৌসুমে পাট কেনার জন্য মিলগুলোকে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ দেওয়া, পাট শিল্পকে কৃষি শিল্পে রূপান্তর করে ওই শিল্পের সব ধরনের সুযোগ দেওয়া, পাটের বাধ্যতামূলক মোড়কজাত নীতিমালা বাস্তবায়ন করা, বিদেশে পাটপণ্য বিক্রির জন্য দূতাবাসের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া, মিলগুলোর আধুনিকায়ন করা এবং আলিম জুট মিলের শ্রমিকদের ৪০ সপ্তাহের মজুরি ও কর্মকর্তা–কর্মচারীদের ১১ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ করা।

Related posts