ফরিদগঞ্জে এক মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সরকারি বই বিক্রির চেষ্টার অভিযোগ

ফরিদগঞ্জে একটি মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। তবে স্থানীয় জনতা কর্তৃক ঘটনা জেনে প্রতিবাদ করায় বিক্রি না করে বইগুলো ওই মাদ্রাসায় ফিরিয়ে নিয়ে আসতে বাধ্য হয় কর্তৃপক্ষ। এদিকে সরকারি বই বিক্রির তথ্য জেনে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ওই বইগুলো জব্ধ করে নিয়ে আসে। জানা গেছে, উপজেলার ১৪নং ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নের হর্ণি দুর্গাপুর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার নৈশ প্রহরী জসিম গত সোমবার রাতে ২০১৪ থেকে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের বিভিন্ন শ্রেণির বই পার্শ্ববর্তী একটি বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে যায়। কিন্তু আশপাশের লোকজন সংবাদ পেয়ে বই বিক্রিতে বাধা দেয়। ফলে ওইসব বই মাদ্রাসায় ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হয়।

সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ পেয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ আলী রেজা আশরাফি মঙ্গলবার দুপুরে ওই মাদ্রাসায় তিন সদস্যের টিম পাঠিয়ে বইগুলো জব্ধ করে নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে মঙ্গলবার ওই মাদ্রাসায় গেলে মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার রুহুল আমিন ও ইবতেদায়ী শাখার প্রধান নেছার আহম্মেদকে পাওয়া যায়নি। তবে নৈশ প্রহরী জসিম জানান, আমাকে বই বিক্রি করার জন্যে অধ্যক্ষ বলেছেন। আমি তাদের কথা মতন বই বিক্রি করতে গিয়েছি। এ ছাড়া আমি আর কিছু জানি না।

এ বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত সুপার রুহুল আমিনকে একাধিকবার ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ আলী রেজা আশরাফী বলেন, মাদ্রাসার বই বিক্রির কথা জেনে তিন সদস্যের কমিটি ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। তারা বই জব্ধ করে এনেছে। বিষয়টি তদন্ত করে রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দিয়েছি।

Related posts