আজ খাল দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান

আজ ২৩ ডিসেম্বর সোমবার সারাদেশে একযোগে সকল নদী, খাল দখলমুক্ত করতে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হবে। সে অনুযায়ী চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের অভ্যন্তরে বারপিট খালের উপর নির্মিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হবে। চাঁদপুর জেলা প্রশাসন, ফরিদগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড, ভূমি অফিস এবং পুলিশ যৌথভাবে এই অভিযানে অংশ নেবে।

জানা গেছে, সরকারের ঘোষিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খানের নির্দেশে উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন যথাক্রমে বালিথুবা পূর্ব, বালিথুবা পশ্চিম, সুবিদপুর পশ্চিম এবং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের ১২ কিলোমিটারব্যাপী খালের উপর ২২৭ জন অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারীর স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হবে আজ। ইতিপূর্বে দখলে আক্রান্ত খালগুলো পরিদর্শন করা হয়েছে। এগুলোর কারণে পানির গতিপ্রবাহ বিঘি্নত হওয়ায় বোরো মৌসুমে পানি প্রবাহে ব্যাঘাত ঘটে। যার ফলে প্রতিবছর কৃষকদের ভুগতে হয়।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন আক্তার জানান, দখলদারদের ইতিমধ্যেই নোটিশ দেয়া হয়েছে। সোমবার সকাল থেকেই চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আব্দুল্লা আল মাহমুদ জামানের নেতৃত্বে একযোগে এ অভিযান চলবে।

এদিকে খাল দখলদারদের উচ্ছেদের পর দখলে ও দূষণে আক্রান্ত ডাকাতিয়া নদীকে বাঁচাতে পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল। ডাকাতিয়া নদীর গতিপথ ঠিক রেখে কচুরিপানা মুক্তকরণ, দখলদারদের উচ্ছেদ এবং ড্রেজিং করে নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ইতিমধ্যেই বাসদ (মার্কসবাদী)সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন আন্দোলন করছে। স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় বিভিন্ন সময়ে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। ফলে এটি আজ গণদাবিতে পরিণত হয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমান এমপি সংসদে এবং বিভিন্ন জনসভায় প্রকাশ্যে ডাকাতিয়া নদীকে রক্ষার ঘোষণা দেন।

Related posts