হাইমচরে নির্বাচনী সংঘর্ষ মোতালেব জমাদারসহ আহত ১৫

হাইমচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে প্রতীক বরাদ্দের দিনই দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। নৌকা ও আনারস মার্কার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ১০ জন আহত হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টায় হাইমচর উপজেলার ৩নং দক্ষিণ আলগী ইউনিয়নের তেলিরমোড় জগন্নাথ মন্দিরের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন : আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতালেব জমাদার (৬৫), আবু জাফর (৩৪), এমরান তালুকদার (২৪), বারেক খান (৫৫), রাকিব (১৭), রাসেদ হোসেন (২২), মনির পাটওয়ারী (৩৪), সাদ্দাম হোসেন (২৫), সোহাগ মাল (১৮), মাহমুদুর রহমান (২৬), রিয়াদ (১৮) ও হৃদয় জমাদার (২২)সহ আরো ক’জন। এদেরকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতালেব জমাদার ও আবু জাফর গুরুতর আহত হন। চিকিৎসক আবু জাফরকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকা রেফার করেছেন।

এদিকে আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূর হোসেন পাটওয়ারীও আহত হয়েছেন বলে জানা যায়। তাঁর হাতের আঙ্গুলে আঘাত পেয়েছেন।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মিজানুর রহমান জানান, হাইমচরের ঘটনায় আহতদের অবস্থা খারাপ। আমরা একজনকে ঢাকা পাঠিয়েছি। তার মুখে চারটি সেলাই লেগেছে। আহত মোতালেব জমাদারের ক্লাস্টিকল ভেঙ্গে গেছে এবং মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত রয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার খবর পেয়ে চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুবুর রহমানের নির্দেশে হাইমচর থানা পুলিশসহ চাঁদপুর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে পুলিশ প্রোটেকশন দিয়ে মোতালেব জমাদারসহ আহতদের চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করানো হয়। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

আহত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতালেব জমাদার জানান, সোমবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জন্যে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। বিকেল ৩টার সময় তেলিরমোড় নদীর পাড়ে প্রতিপক্ষরা ইমরান হোসেন তালুকদার (২৫) নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে মারধর করে। এ ঘটনা শোনার পর ঘটনাস্থলে তাকে দেখতে গেলে নৌকার প্রার্থী নূর হোসেন পাটোয়ারী নিজে দলবল নিয়ে এসে বলেন, ‘নৌকার বাইরে কোনো প্রার্থী থাকবে না। তুই কিসের প্রার্থী’ এ কথা বলে আমার এবং আমার কর্মী-সমর্থকদের উপর হাতুড়ি ও কাঠের টুকরা নিয়ে হামলা করে। যারাই হামলা করেছে প্রশাসনের কাছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। মোতালেব জমাদার আরো বলেন, আমাকেসহ আহতদের তাৎক্ষণিক হাইমচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে নূর হোসেনের সমর্থকরা হাসপাতালে গিয়েও পুনরায় হামলা চালায়।

এদিকে নৌকার প্রার্থী নূর হোসেন পাটওয়ারীর কর্মী-সমর্থকরা অভিযোগ করন, মোতালেব জমাদারের সাথে বিএনপির কর্মী-সমর্থকরা যোগ দিয়ে নৌকার কর্মীদের উপর হামলা চালায়। তাদের হামলায় নৌকার কর্মী বারেক, রাসেদ, মনির, সাদ্দাম, সোহাগ, মাহমুদ ও রিয়াদ আহত হন।

Related posts