‘সুস্থতার আশা’য় পুঁতে রাখা হলো প্রতিবন্ধী শিশুকে

তিন শারীরিক প্রতিবন্ধী শিশুকে মাটিতে থুতনি পর্যন্ত পুঁতে রাখা হলো শুধু সুস্থতার আশায়। তা-ও ক্ষণিক সময়ের জন্য নয়, দুই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে তাদের এভাবে কষ্ট দেয়া হয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ চলাকালে ভারতের কর্নাটক রাজ্যে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে লোকসভার সাবেক এক নারী সদস্য কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে তাদের উদ্ধার করেন।

গতকাল বিশ্বজুড়ে দেখা গেছে বছরের শেষ বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ। ভারতে সকাল ৮টা ১৭ মিনিটে এ সূর্যগ্রহণ শুরু হয়। চলে বেলা ১১টা পর্যন্ত।

ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, সূর্যগ্রহণ চলাকালে গর্ত খুঁড়ে তিন শারীরিক প্রতিবন্ধী শিশুকে থুতনি পর্যন্ত পুঁতে রাখা হয়। তাদের বিশ্বাস, এতে তারা সুস্থ হয়ে যাবে। সূর্যগ্রহণ চলাকালে তাদের এভাবেই রাখা হয়। স্থানীয়দের কাছ থেকে বিষয়টি জানতে পেরে একজন নারী অধিকার কর্মী তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানান। পরে লোকসভার সাবেক নারী সদস্য বি আর পাতিল কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে তাদের উদ্ধারের ব্যবস্থা করেন।

চাঁদ যখন পরিভ্রমণরত অবস্থায় কিছু সময়ের জন্য পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে এসে পড়ে, তখন পৃথিবীর কোনো দর্শকের কাছে সূর্য কিছু সময়ের জন্য আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে অদৃশ্য হয়ে যায়। এই ঘটনাকে সূর্যগ্রহণ বলা হয়। অমাবশ্যার পরে নতুন চাঁদ উঠার সময় এ ঘটনা ঘটে।

এই সূর্যগ্রহণকে নিয়ে সমাজে বিভিন্ন ধরনের কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে। যেমন, এসময় গর্ভবতী নারীদের কোনো কিছু কাটা বা বাইরে বের হওয়া যাবে না, সূর্যগ্রহণের সময় কোনো ধরনের খাবার বা পানীয় গ্রহণ করলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর, গ্রহণের পর ভ্রমণ বা গোসল না করা ইত্যাদি; যার বৈজ্ঞানিক কোনো ভিত্তি নেই।

Related posts