ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফরিদগঞ্জে ফয়েজ হত্যায় জড়িত সন্দেহে আটক ১

ফরিদগঞ্জে অটোরিকশা চালক ফয়েজ খান হত্যার রহস্য উন্মোচন হতে চলেছে। ইতিমধ্যেই নৃশংস এই হত্যাকা-ের সাথে জড়িত সন্দেহে পার্শ্ববর্তী হাইমচর উপজেলা থেকে এক যুবককে আটক করেছে সিআইডি পুলিশ। এছাড়া ফয়েজ খানের ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও উদ্ধার করেছে তারা। যদিও তদন্তের স্বার্থে ঐ যুবকের নাম প্রকাশ করেনি সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক আবু জাহের সরকার। তবে হত্যার সাথে জড়িত অন্যদের আটক করার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আশা করছি দ্রুত হত্যা রহস্য উন্মোচিত হবে।

উল্লেখ্য, ১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাতে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১০নং গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের লামচর গ্রামের একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে ফয়েজ খানের বিকৃত লাশটি উদ্ধার করে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। ঐ রাতেই ফয়েজ খানের পিতা লতিফ খান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

২৮ মার্চ রোববার ফয়েজ খান তার অটোরিকশাটি নিয়ে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন। পরদিন তার বাবা লতিফ খান ফরিদগঞ্জ থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন। ১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের লামচর গ্রামের কালী মন্দিরের পাশে জনৈক শিপন দাসের পরিত্যক্ত ঘর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় অর্ধগলিত ও বিকৃত একটি লাশের সন্ধান পায় পুলিশ। লাশ উদ্ধারের পর পরিবারের লোকজন তার পরিহিত গেঞ্জি, প্যান্ট ও জুতা দেখে লাশটি ফয়েজের বলে শনাক্ত করেন।

এদিকে লাশটি উদ্ধারের পর ফরিদগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হলেও পুলিশের পাশাপাশি সিআইডি ও পিবিআই হত্যাকা- সম্পর্কে ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই এক পর্যায়ে সিআইডি পুলিশ মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে হত্যাকা-ের সাথে জড়িত সন্দেহে পার্শ্ববর্তী হাইমচর উপজেলা থেকে এক যুবককে আটক করার পর মামলাটির তদন্তভার তারা গ্রহণ করে। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, আটককৃত ঐ যুবক ফয়েজ খানের আত্মীয়।

সর্বশেষ - ফরিদগঞ্জ

জনপ্রিয় - ফরিদগঞ্জ