হাইমচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ২ ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জয়লাভ

নজিরবিহীন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে হাইমচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল ১৩ জানুয়ারি সোমবার এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আর এ নির্বাচনটি হয়েছে ইভিএম পদ্ধতিতে। চাঁদপুর জেলায় এই প্রথম কোনো নির্বাচন হলো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণের মধ্য দিয়ে।

সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলে। উপজেলার মোট ৬টি ইউনিয়নের ৩১টি কেন্দ্রে এই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নূর হোসেন পাটওয়ারী ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোতালেব জমাদারের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়। ৪ হাজার ৪শ’ ২৪ ভোটের ব্যবধানে নূর হোসেন পাটওয়ারী জয়লাভ করেন। এছাড়া দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদেও আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জয়লাভ করেন। এরা হচ্ছেন জাহাঙ্গীর বেপারী ও শাহনাজ বেগম।

পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তথা র‌্যাব, বিজিবি ও পুলিশ সদস্য এবং পুলিশ ও র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে পুরো উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। এর পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তা, জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত ছিলো সক্রিয়। ৩১টি কেন্দ্রের কোনো কেন্দ্রেই তেমন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। কেন্দ্রের বাইরেও ছিলো উৎসবমুখর পরিবেশ।

উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে মোট ৮০ হাজার ২৩৪ ভোটের মধ্যে কাস্ট হয়েছে প্রায় ৩৫ ভাগ। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীসহ মোট ৩ জন প্রার্থী ছিলেন। এর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নূর হোসেন পাটওয়ারী (নৌকা) জয়লাভ করেন। তিনি পেয়েছেন ১৬ হাজার ১শ’ ৫১ ভোট। আর তার নিকটতম প্রতিন্দ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোতালেব জমাদার (আনারস) পেয়েছেন ১১ হাজার ৭শ’ ২৭ ভোট। আর বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকে ইসহাক খোকন পেয়েছেন ৪ হাজার ২শ’ ৬ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট প্রার্থী ছিলেন ১০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন। জয়লাভ করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী (মাইক)। তিনি পেয়েছেন ১৯ হাজার ১শ’ ৬৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জিএম ফজলুল রহমান (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৮ হাজার ৪শ’ ৪৬ ভোট। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শাহনাজ বেগম (হাঁস) পেয়েছেন ১৭ হাজার ২শ’ ৬৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফাতেমা বেগম (ধানের শীষ) পেয়েছেন ১৪ হাজার ৬শ’ ৭৩ ভোট।

গতকাল সোমবার সকাল ৯টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। শুরুতেই প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রের প্রতিটি বুথে নারী ও পুরুষ ভোটারের দীর্ঘলাইন দেখা গেছে। তবে এই প্রথম ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হওয়ায় হাইমচরের ভোটারদের ভোট দিতে অনেক সময় ও জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। সেজন্যে ভোটগ্রহণ করতে অনেক সময় লেগেছে। অনেক ভোটারের আঙ্গুলের ছাপ ঠিকমতো না উঠায় তাকে বারবার আঙ্গুলের ছাপ দিতে হয়েছে। এই জটিলতা এবং বিরক্তির কারণে কিছু কিছু ভোটার ভোট না দিয়েই চলে গেছেন। বিভিন্ন কেন্দ্রের পোলিং অফিসার ও প্রার্থীদের এজেন্টদের কাছ থেকে এ তথ্য জানা গেছে। তবে দুপুরের পর থেকে প্রায় কেন্দ্রেই ফাঁকা ছিলো।

এদিকে ভোটগ্রহণ ইভিএম পদ্ধতিতে হওয়ায় ফলাফল ঘোষণায় বেশি সময় লাগেনি। বিকেল ৫টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর সন্ধ্যা থেকেই কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণার খবর আসতে থাকে।

Related posts