ট্রেনে কাটা পড়ে কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর কর্মকর্তার মৃত্যু

৪ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার চাঁদপুর শহরের মিশন রোড এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে চাঁদপুরগামী সাগরিকা এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবরক্ষকের মৃত্যু হয়েছে।

জানা যায়, চাঁদপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র মজুমদার (৫৭) দুপুরে শহরের মিশন রোড রেলক্রসিংয়ের পশ্চিম পাশে রেললাইনে বসা অবস্থায় ছিলেন। এ সময় চট্টগ্রাম থেকে চাঁদপুরগামী সাগরিকা এক্সপ্রেস ট্রেনটি আসছিল। ট্রেনটি বার বার হুইসল বাজানোর পরেও তিনি রেললাইন থেকে সরে দাঁড়াননি। এক পর্যায়ে তার মাথায় ট্রেনের সাথে আঘাত পেলে তিনি ঘটনাস্থলে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকেন।

স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে সার্ভিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্মরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর পরপরই চাঁদপুর রেলওয়ে জিআরপি থানা পুলিশ এসে লাশটি তাদের কাছে নিয়ে যায়।

জানা যায়, সুভাষ চন্দ্র মজুমদার চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার কালিরবাজার এলাকার বাসিন্দা। চাকুরির সুবাদে তিনি শহরের বিপণীবাগ বাজার এলাকায় ভাড়া থাকেন। তার স্ত্রী অর্চনা রাণী দাস চাঁদপুরের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মরত রয়েছেন। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক। তার চাকরির মেয়াদ আর মাত্র তিন বছর বাকি রয়েছে।

তার পরিবার সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন তিনি অসুস্থতার কারণে প্রায় সময় হাঁটতে বের হন। এমনকি অফিসের কাজের ফাঁকে সুযোগ পেলেই অফিস থেকে বের হয়ে বিভিন্ন স্থানে হাঁটতে থাকেন। ধারণা করা হচ্ছে গতকাল হাঁটাহাঁটিকালে শরীর অসুস্থ লাগছে এমন ভেবে রেললাইনে বসে ছিলেন। তার অসুস্থতার কারণে হুইসল শুনতে না পাওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

এদিকে দুর্ঘটনার খবর মুহূর্তেই তার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পৌঁছে গেলে সেখানে তার দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা হাসপাতালে ছুটে যান। তবে এ বিষয়ে চাঁদপুর রেলওয়ে জিআরপি থানায় একটি অপমৃত্যু মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

Related posts