ঢাকা, শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গরুর ধান খাওয়া নিয়ে রক্তাক্ত রাজরাজেশ্বর

চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর চরে গরুর ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। গত ৮ মে শনিবার সকালে সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড দেওয়ানকান্দিতে এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এলে উভয় পক্ষের গুরুতর আহত ৮ জনকে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ইউপি সদস্য হাসান আলী দেওয়ান (৬৫) শরবত আলী (৬০), মোক্তার হোসেন (৪০), আঃ জব্বার (৬৫), আলমগীর (২৬), হাকিম আলী (৩২) ও মহসিন (৩২)। এরা সবাই দেওয়ান ও প্রধানিয়া গোষ্ঠীর। এছাড়া বাকিরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে।

হাসপাতালে ডিউটি ডাঃ ফরহাদ উল করিম জানান, আহতদের ৪/৫ জনের অবস্থা গুরুতর। অনেকের মাথায় আঘাত রয়েছে, অপারেশন লাগতে পারে।

এদিকে হামলার খবর পেয়ে রাজরাজেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ হযরত আলী বেপারী চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ছুটে গিয়ে আহতদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন।

আহত এবং তাদের স্বজনরা জানান, রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নে স্থানীয় প্রধানিয়া ও দেওয়ান গোষ্ঠীর লোকজনের সাথে দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। তারই সূত্র ধরে শনিবার সকালে জনৈক ফরিদ দেওয়ানের জমিতে প্রধানিয়া বাড়ির একটি গরু ধান ক্ষেতে ঢুকে জমির ধান খেয়ে ফেলে। এজন্যে দেওয়ানকান্দির লোকজন সেই গরুটি আটকে রাখেন। এ খবর পেয়ে প্রধানিয়াকান্দির লোকজন গরু আনতে সেখানে ছুটে যায়। তখন স্থানীয় মেম্বার হাসান আলী দেওয়ান উপস্থিত ছিলেন।

গরুর ধান খাওয়া ও গরু আটকে রাখা নিয়ে তাদের উভয়ের সাথে বাক্বিত-া হয়। এক পর্যায়ে তারা উত্তেজিত হয়ে পড়লে দেওয়ান গ্রুপ এবং প্রধানিয়া গ্রুপের মাঝে ব্যাপক সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় তারা দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি, ইট-পাটকেল ব্যবহার করে বলে জানা যায়।

তবে হামলায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান আলী দেওয়ানসহ দেওয়ানকান্দির লোকজন বেশি গুরুতর আহত হতে দেখা গেছে।

হামলার খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানার দারোগা রজব মিয়া হাসপাতালে গিয়ে আহতদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করেছেন।

এ ব্যাপারে উভয় পক্ষ আইনের আশ্রয় অথবা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মাধ্যমে সামাজিকভাবে উভয় পক্ষ বসে বিষয়টি মীমাংসা করার উদ্যোগ নিতে পারেন বলে জানা গেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোনো পক্ষ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি।

এ ব্যাপারে চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ জানান, এ ঘটনায় কোনো পক্ষ অভিযোগ না দেয়ায় এখন পর্যন্ত মামলা দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সর্বশেষ - চাঁদপুরচাঁদপুর সদর

জনপ্রিয় - চাঁদপুরচাঁদপুর সদর