ঢাকা, শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে চাঁদপুরবাসীর করনীয় নিয়ে ভিডিও বার্তায় আসলেন পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ (বিপিএম)

ভিডিও বার্তা প্রদানের পূর্বমুহুর্তে ধারণকৃত স্থিরচিত্র। (ফেসবুক পাতা থেকে সংগৃহীত)

চলমান করোনা পরিস্থিতির আশংকাজনক অবস্থা থেকে উত্তরনে চাঁদপুরবাসীর উদ্দেশ্যে একটি ভিডিও বার্তা পোস্ট করেছেন চাঁদপুর জেলা পুলিশের মাননীয় পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার)।

ভিডিও বার্তাটি চাঁদপুর জেলা পুলিশের ফেসবুক পাতায় সংযোজিত হয়েছে।

বার্তাটি পাঠকের সুবিধার্তে বাচনিক লিখিতরুপে তুলে ধরা হলো।

“ প্রিয় চাঁদপুরবাসী, আসসালামু আলাইকুম।

আপনারা জানেন সারা বিশ্বের মানুষ আজকে একটি বিশেষ ভাইরাসের কাছে প্রায় পরাদস্ত হয়ে গেছে। সে ভাইরাসের নাম হচ্ছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। সারা বিশ্বের ধনী ও গরীব রাষ্ট্রের লোকজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে। এটি এমনটি একটি ভাইরাস যা আমরা চোখে দেখতে পাই না। এর অস্তিত্ব আমরা বুঝতে পারি যখন এতে আক্রান্ত হই। আর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে নিকট আত্মীয়সহ কাছের লোকজন কেউ কাছে থাকতে পারে না। এর কষ্টটা বুঝতে পারে যে ব্যাক্তি আক্রান্ত হচ্ছে সে, এবং তার পরিবার।

আপনারা জানতে পেরেছেন ইতোমধ্যে দেশের কয়েকটি জেলা স্থানীয়ভাবে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে আমাদের প্রতিবেশী জেলা নোয়াখালী, নারায়নগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ রয়েছে। এটি আমাদের দোরগোড়ায় নক করছে।

এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে হলে আমাদের কয়েকটি বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। জীবন যাত্রায় কিছুটা পরিবর্তন আনতে হবে। আমার মত যারা সাধারণ মানুষে আছেন, তাদের জন্য বলবো, আসুন আমরা যখন বাহিরে যাচ্ছি, তখন অবশ্যই মাস্ক পরে যাই। প্রয়োজন ছাড়া আমরা যেন বাহিরে না যাই এবং বাহিরে গেলে কোন কিছু স্পর্শ করলে অবশ্যই সাবান দিয়ে হাত ধুই অথবা হ্যান্ড স্যানেটাইজার ইউজ করি। সকল প্রকার সভা সমাবেশ থেকে আমরা বিরত থাকি এবং বাহিরে থেকে যখন আমরা বাসায় আসি, তখন আমার পরিধেয় কাপড়সহ শরীর পরিচ্ছন্ন করে বাসায় প্রবেশ করি।

মার্কেট এবং হোটেল মালিকদের আমি বলবো, আপনারা আপনাদের দোকান কিংবা প্রতিষ্ঠানের সামনে ৩ ফুট দূরত্বে চিহ্ন এঁকে দিন। যে পরিমান লোক আপনার দোকানে প্রবেশ করতে পারে, সে পরিমান প্রবেশ করান। অতিরিক্ত হলে নিষেধ করুন। নিজে মাস্ক পডুন, হ্যান্ড স্যানেটাইজার ব্যবহার করুন এবং ক্রেতাদের জন্য একই ব্যবস্থা রাখুন। প্রতিটি মার্কেটের সামনে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখুন।

হোটেল মালিকদের উদ্দেশ্যে বলবো, আপনারা খাবার বিক্রি করবেন, আপনাদের হোটেলে বসে কেউ খাবে না, এই পদ্ধতি চালু করেন। বসে খাবার বিক্রি থেকে বিরত থাকুন।

গণপরিবহনের সাথে যারা সংশ্লিষ্ট তাদের জন্য বলবো, বাস, লঞ্চসহ অন্যান্য যানবাহগুলো যাত্রীর অর্ধেক ধারণ ক্ষমতা নিয়ে চলাচল করুন। মাস্ক ছাড়া আপনারা কেউ আপনাদের গাড়ীতে উঠাবেন না। প্রয়োজনে আপনার বাহনে হ্যান্ড স্যানেটাইজার ও মাস্ক রাখুন এবং প্রতিবার যাত্রী পরিবহন শেষে গাড়ীটিকে জীবানু মুক্ত করুন।

আসুন, আমরা সবাই মিলে এ সমস্ত জিনিসগুলো মানি এবং চাঁদপুরকে কঠোর লকডাউনের হাত থেকে রক্ষা করি। নিজে বাঁচি এবং পরিবারকে বাঁচাই।

ধন্যবাদ।”

সর্বশেষ - Social Linkচাঁদপুরচাঁদপুর সদরপ্রথমপাতাসমসাময়িক

জনপ্রিয় - Social Linkচাঁদপুরচাঁদপুর সদরপ্রথমপাতাসমসাময়িক