ঢাকা, বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গুগলকে টপকে বিশ্বের ৩য় দামি কোম্পানির তালিকায় সৌদি আরামকো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত বুধবার আআন্তর্জাতিক শেয়ারবাজারে পারফরম্যান্স দেখিয়ে দুই ট্রিলিয়ন প্রায় দুই লাখ কোটি ডলার মূলধনের মাইলফলক স্পর্শ করেছে সৌদি আরামকো কোম্পানি। এর ফলে গুগলের মূল কোম্পানি অ্যালফাবেটকে পেছনে ফেলে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের জায়গা দখল করেছে সৌদি আরামকো।

হিঃবিশ্বের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সাথে চাহিদাও বহুগুণ বেড়ে চলছে। এতে করে ফুলেফেঁপে উঠছে তেল উৎপাদনকারী দেশ ও কোম্পানিগুলোর সম্পদের পাহাড়। তেল উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে আরামকো কোম্পানি (saudi aramco) যার অন্যতম অংশীদার সৌদি রাজপরিবার।

আরামকো কোম্পানির একটি তৈল শোধনাগার কেন্দ্র যেখানে মূলত অপরিশোধিত তেল প্রক্রিয়া করা হয়।

আল জাজিরার প্রকাশিত এক প্রতিবদনের সূত্রে জানা যায়, বিশ্বের সবচেয়ে দামী প্রতিষ্ঠান হওয়ার দৌঁড়ে কেবল অ্যাপল ও মাইক্রোসফটের পেছনে রয়েছে সৌদি আরামকো কোম্পানি। প্রতিষ্ঠানটির বেশিরভাগ মালিকানাই সৌদি আরবের নিয়ন্ত্রণে।

গত বুধবার সৌদি আরামকোর শেয়ারের দর উঠেছিল ৩৭ দশমিক ৬ রিয়াল বা ১০ দশমিক ০৩ মার্কিন ডলারে। তবে শেষের দিকে তা কমে ৩৭ দশমিক ২ রিয়াল বা ৯ দশমিক ৯২ ডলারে দাঁড়ায়। এরপরও মূলধনের হিসাবে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম প্রতিষ্ঠান হওয়ার সম্মান অর্জন করে আরামকো কোম্পানি।

সৌদি আরবের বর্তমান ক্রাউন প্রিন্স সালমানের নেতৃত্বে আরামকো উঠে এসেছে শীর্ষ কোম্পানির তালিকায়।

সৌদি আরামকোকে শেয়ারবাজারে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনাটি করেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। ক্রাউন প্রিন্স এই যুবরাজের নির্দেশেই ২০১৯ সালের শেষের দিকে সৌদি সরকার আরামকো কোম্পানিটি শেয়ারবাজারে নিজেদের তালিকাভুক্ত করে।

সম্প্রতি বিশ্ববাজারে তেলের দাম গত সাত বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় বিপুল লাভের মুখ দেখছে সৌদি আরামকো। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে তাদের আয় হয়েছে আনুমানিক ৪৭ বিলিয়ন বা ৪ হাজার ৭০০ কোটি ডলার, যা গত বছর একই সময়ের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। এর ফলে করোনার আঘাতে আয় কমে যাওয়ার আগে যে অবস্থায় ছিল আরামকো, দ্রুতই সেই পরিস্থিতিতে ফিরে গেছে তারা।

সৌদি আরবের দাম্মাম শহরে অবস্থিত আরামকোর একটি রিজিওনাল অফিস।

সৌদি আরামকোর আয়ের হিসাবে দর ওঠানামা সত্ত্বেও প্রতিষ্ঠানটি ২০২৪ সাল পর্যন্ত শেয়ারহোল্ডারদের বার্ষিক ৭৫ বিলিয়ন (সাড়ে সাত হাজার কোটি) ডলারের লভ্যাংশ দিবে বলে ঘোষণা করেছে সৌদি আরব সরকার।

সর্বশেষ - অর্থনীতিআন্তর্জাতিক

জনপ্রিয় - অর্থনীতিআন্তর্জাতিক