ঢাকা, শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৪২তম বিসিএসের সেই ১৯১৯ চিকিৎসকের নিয়োগ হচ্ছে

বিশেষ প্রতিবেদক: ৪২তম বিশেষ বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও পদ স্বল্পতায় অপেক্ষমাণ তালিকার সেই ১৯১৯ চিকিৎসক নিয়োগ প্রক্রিয়াতেই আছেন বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

উপাচার্য এ প্রসঙ্গে বলেন, বিশেষ বিসিএস থেকে ৪ হাজার চিকিৎসকের জন্য সুপারিশ করা হলেও মোট ৫ হাজার ৯১৯ জনকে উত্তীর্ণ ঘোষণা করেছে পিএসসি (বাংলাদেশ কর্ম কমিশন)। ১ হাজার ৯১৯ জনকে অপেক্ষমাণ রাখা হয়েছে। যেহেতু তাদের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করা হয়েছে, সেহেতু নিশ্চয়ই তারা একটা প্রসেসিংয়ের মধ্যে আছেন।

দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি অনলাইন পোর্টালের সঙ্গে আলাপে গতকাল মঙ্গলবার এমন মন্তব্য করেন ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, বিগত সময়ে বাংলাদেশে যেখানে সরকারি চিকিৎসক ছিলেন মাত্র ৮ হাজার ৩১২ জন, সেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আশীর্বাদে এখন দেশে ৩৬ হাজার সরকারি চিকিৎসক রয়েছেন। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে তিনি নতুন করে ৬ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দিয়েছেন। এর মধ্যে পূর্ববর্তী বিসিএস থেকে ২ হাজার জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং ৪২তম বিসিএস থেকে চার হাজার জনকে সুপারিশ করা হয়েছে। বাকিদেরও আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়োগ দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, সরকার হয়তো তাদের সবাইকে পর্যায়ক্রমে সুপারিশ করে নিয়োগ দেবে। আমি মনে করি, ৪২তম বিসিএস থেকে যেহেতু ছয় হাজার জনকে উত্তীর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে, তাদের সবাইকে যেন ধীরে ধীরে নিয়োগ দেওয়া হয়। করোনা সংক্রমণ কিছুটা কমে যাওয়ার কারণে যেন ভাবা না হয় যে চিকিৎসকদের প্রয়োজন নাই।

আরো পড়ুন: ৪২তম বিসিএস, চূড়ান্তভাবে উত্তির্ন হয়েও পদ সল্পতায় বঞ্চিত ১৯১৯ ডাক্তার

‘চিকিৎসক, নার্স ও টেকনোলজিস্টদের যেকোনো সময়ই প্রয়োজন হতে পারে। তাই আমি মনে করি, তাদের নিয়োগ দিয়ে স্বাস্থ্য-ব্যবস্থার উন্নয়নে উপজেলাপর্যায় পর্যন্ত যেন সব শূন্য পদ পূরণ করা হয়।’

জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) ২০২০ সালের ৩০ নভেম্বর ২হাজার চিকিৎসককে ‘সহকারী সার্জন’ পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এরপর চলতি বছরের ৩০ জুন অনুষ্ঠিত স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সভায় আরও চার হাজার চিকিৎসক নিয়োগে সিদ্ধান্ত হয়। এ হিসাবে মোট ছয় হাজার চিকিৎসক নেওয়ার কথা। কিন্তু পরবর্তীতে ৭ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নবনিয়োগ শাখার এক বিজ্ঞপ্তিতে চার হাজারের পরিবর্তে দুই হাজার অতিরিক্ত চিকিৎসক নেওয়ার কথা জানানো হয়।

ফলে চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ৪২তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফলাফলে মোট পাঁচ হাজার ৯১৯ জন উত্তীর্ণ হলেও পিএসসি চার হাজার জনকে ‘সহকারী সার্জন’ পদে নিয়োগের সুপারিশ করে। অবশিষ্ট ১ হাজার ৯১৯ জনকে অপেক্ষমাণ তালিকায় রাখা হয়।

সর্বশেষ - প্রথমপাতাস্বাস্থ্য

জনপ্রিয় - প্রথমপাতাস্বাস্থ্য