ঢাকা, শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

এমপি শামসুল হক টুকুকে এলাকা ছেড়ে যাওয়ার অনুরোধ

parliament member bangladesh
পাবনা।।
অনলাইন ডেস্ক:

পাবনা জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও বেড়া পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মাহবুবুর রহমান আজ সোমবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে এমপি শামসুল হক টুকুকে এলাকা ছেড়ে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, বেড়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন এমপি টুকুর বড় ছেলে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা আসিফ শামস রঞ্জন। তার মনোনয়ন প্রত্যাখ্যান করে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন এমপি টুকুর আপন ছোট ভাই বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল বাতেন। চাচার পরিবারকে লুটেরা ও দুর্নীতিবাজ আখ্যায়িত করে মেয়র পদে লড়ছেন এমপি টুকুর বড় ভাইয়ের মেয়ে এসএম সাদিয়া আলম। তিন প্রার্থীকে ঘিরে কেবল পরিবারের সদস্যরাই নয়, বিভক্ত হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী ও আওয়ামী লীগের সমর্থকরা। চলছে একে অপরকে আক্রমণ করে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়। সভা-সমাবেশ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে তর্কবিতর্ক। ঘটেছে হামলার ঘটনাও।

স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল বাতেন বলেন, এমপি শামসুল হক টুকুর নির্দেশে বহিরাগত সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের পৌর এলাকায় আনাগোনা বেড়েছে। এমপির উপস্থিতিতে প্রকাশ্য সভায় চিহ্নিত সন্ত্রাসী রমজান, ময়ছের, হাকিম বস, হান্নান নৌকা প্রতীকে ভোট না দিলে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে।

মোবাইল ফোন প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী এমপি টুকুর বড় ভাইয়ের মেয়ে এসএম সাদিয়া আলম বলেন, আমার কর্মী-সমর্থকদের নির্বাচনী মাঠে নামতেই দেওয়া হচ্ছে না। নামলেই ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে কিংবা শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হচ্ছে। বেড়া উপজেলায় আওয়ামী লীগের জন্য এমপি টুকু ও তার ছেলেদের কোনো অবদান নেই।

রেল ইঞ্জিন প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী এইচএম ফজলুর রহমান মাসুদ বলেন, নৌকার প্রার্থী ও তার সংসদ সদস্য বাবা প্রশাসনকে ব্যবহার করে ভোট ডাকাতির পরিকল্পনা করছেন। নৌকা ছাড়া অন্য কোনো প্রতীকে ভোট দিতে দেওয়া হবে না বলেও প্রকাশ্য ঘোষণা দেওয়া হচ্ছে। আমি লিখিতভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দিয়েছি।

নৌকার প্রার্থী আসিফ শামস রঞ্জন বলেন, আমার চাচা আব্দুল বাতেন তার দুর্নীতি-অনিয়মের কারণে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। তার অপকর্মের কারণে দল তাকে মনোনয়ন দেয়নি। নৌকার বিরোধিতাকারীদের সঙ্গে কোনো রক্তের সম্পর্ক থাকতে পারে না।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও বেড়া পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মাহবুবুর রহমান বলেন, আচরণবিধি অনুযায়ী সংসদ সদস্য পর্যায়ের অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করে নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না। পাবনা-১ আসনের সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকুকে এই বিধান মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে এলাকা ত্যাগ করতে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

পাবনা-১ আসনের সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকু চিঠি প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নির্বাচনের বিধান সম্পর্কে আমি অবহিত। আমি আচরণবিধি লংঘন করিনি, করার ইচ্ছেও নেই।

সর্বশেষ - প্রথমপাতাসারাদেশ

জনপ্রিয় - প্রথমপাতাসারাদেশ